ব্রেকিং নিউজ :
অবৈধ ব্যাটারি রিকশা বন্ধে সুপ্রিম কোর্টের রায় বাস্তবায়ন শিগগির : চসিক মেয়র কোভিড মৃত্যুর জন্য জর্ডান হাসপাতাল প্রধানের জেল বাজেট সাপোর্টের আওতায় বিশ্বব্যাংককে প্রকল্প ঋণ প্রদানের অনুরোধ দীর্ঘদিন ক্ষমতায় না থাকায় বিএনপি নেতারা দিশেহারা : ওবায়দুল কাদের বঙ্গবন্ধু শান্তি ও সম্প্রীতিতে বিশ্বাসী ছিলেন : সায়মা ওয়াজেদ শ্রীঘ্রই জাতীয় সেচ্ছাসেবক নীতিমালা মন্ত্রিপরিষদে উত্থাপন করা হবে : স্থানীয় সরকার মন্ত্রী ইউজিসির প্রফেসর হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন অধ্যাপক ডা. সজল কৃষ্ণ ব্যানার্জী আইসিটি বিভাগের প্রকল্পসমূহের আর্থিক অগ্রগতি ১৯ দশমিক ২৭ শতাংশ কেরাণীগঞ্জস্থ দোলেশ্বর হানাফিয়া জামে মসজিদের ইউনেস্কো পুরস্কার লাভ প্লাস্টিক পণ্য রপ্তানি আয় ৩০ শতাংশ বেড়েছে
  • আপডেট টাইম : 03/04/2021 12:25 AM
  • 150 বার পঠিত

সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ার মহেষপুর-গজাইল পর্ষন্ত প্রায় সোয়া এক কিলোমিটার কাঁচা সড়ক পথ বেহাল দশায় খানাখন্দে ভরপুর হয়ে পড়েছে। এক বছর আগে সরকারী ও গ্রামবাসীর অর্থায়নে প্রায় ৯ লাখ টাকা ব্যয়ে সড়কটি পুনঃনির্মাণ করা হয়েছিলো। সড়কটি পুনঃ নির্মানের অর্ধেক টাকা গ্রামবাসীরা দিয়ে ছিলেন। বছর না ঘুরতেই গত বন্যার পানির স্রোত ও ঢেউয়ের আঘাতে সড়ক পথটি ক্ষতি গ্রস্থ হয়ে চলাচলে অযোগ্য হয়ে পড়েছে ।
উল্লাপাড়া উপজেলার প্রত্যান্ত অঞ্চলের উধুনিয়া ইউনিয়েনের মহেষপুর ঢালু থেকে গজাইল বাজার পর্যন্ত প্রায় সোয়া এক কিলোমিটার কাঁচা সড়ক পথ বহু বছর ধরে মেরামতের অভাবে বেহাল অবস্থায় ছিলো । এক বছর আগে উচু করে সড়ক পথটি পুনঃনির্মাণ করা হয় । পুনঃনির্মাণে ওই এলাকাবাসী সহজে ও দ্রুত সময়ের মধ্যে গ্রাম থেকে শহরে যাতায়াত করতে পারতো কিন্তু গত বন্যার পানির স্রোত ও ঢেউয়ের আঘাতে সড়ক পথটি আবার পূর্বের অবস্থায় ফিরে এসেছে ।
সরজমিনে গিয়ে জানা যায়, বর্ষাকালে পানির স্রোত ও ঢেউয়ের আঘাতে সড়ক পথের বেশির ভাগ অংশ ধসে গেছে । শুষ্ক মৌসুমে এসে পুরা সড়ক পথ জুড়ে ধুলায় ভরপুর হয়ে আছে । ছোট-বড় খানাখন্দে পুরো সড়ক । এখন এলাকার লোকজন পায়ে হেটে দীর্ঘ পথ চলাচলে চরম ভোগান্তিতে পড়ছে । এলাকা বাসী জানায়, সড়কটি উচু করে পুনঃনির্মাণ করা হলেও বন্যার পানির স্রোত ও ঢেউয়ের আঘাতে তা ধসে যায় ।
উধুনিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ আব্দুল জলিল প্রামানিক জানান, গুরুত্বপুর্ণ ওই সড়ক পথটি পুনঃনির্মানে প্রায় ৯ লাখ টাকা ব্যয় হয়েছিল । ওই ব্যয়কৃত অর্থের মধ্যে এলাকার তিন গ্রামবাসী চার লাখ পয়ষট্রি হাজার টাকা ও চেয়ারম্যানের নিজ তহবিল থেকে পোনে দু লাখ টাকা এবং উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিস থেকে একটি উন্নয়ন প্রকল্পের মাধ্যমে আড়াই লাখ টাকা বরাদ্দ দিয়ে সড়কটি পুনঃ নির্মান করা হয়েছিলো কিন্তু বন্যায় তা ধসে গেছে ।
উপজেলা প্রকৌশলী মঈন উদ্দিন বলেন, উপজেলার পশ্চিমাঞ্চল জুড়ে স্বাভাবিক বন্যাতেই তলিয়ে গিয়ে সড়ক পথগুলো ক্ষতিগ্রস্ত হয় । প্রতি বছর বন্যায় পশ্চিমাঞ্চলের সড়ক গুলো ক্ষতির হাত থেকে রক্ষার জন্য সড়ক পথ উচু না করে সাবমারজেবল সড়ক নির্মাণ করা হচ্ছে । যা বন্যার সময় ওই অঞ্চলের মানুষ নৌকায় যাতায়াত করবে আর শুষ্ক মৌসুমে যানবাহনে চলাচল করবে । মহেষপুর সড়কসহ এলাকার সড়কগুলো উন্নয়নে ও পুনঃনির্মানে সাবমারজেবল সড়ক নির্মানে পরিকল্পনা করা হচ্ছে । এরই মধ্যে একাধিক সাবমারজেবল সড়ক নির্মাণ কাজ শুরু করা হয়েছে।

 

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
ফেসবুকে আমরা...