ব্রেকিং নিউজ :
মেহেরপুরে আমের মুকুলে ভরে গেছে গাছ দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় ১৬ জন করোনায় আক্রান্ত বেসরকারি স্বাস্থ্য সেবা প্রতিষ্ঠানের ফি নির্ধারণ করা হচ্ছে : স্বাস্থ্যমন্ত্রী শিশুদের জন্য নিরাপদ পরিবেশ গড়ে তুলুন : রাষ্ট্রপতি অঙ্গদানকারী সারাহ ইসলামের মৃত্যু নাই : বিএসএমএমইউ উপাচার্য নদী ভাঙ্গনে বাস্তুচ্যুতদের টেকসই জীবিকার কর্মপরিকল্পনা প্রণয়নে কাজ করছে সরকার : পরিবেশমন্ত্রী স্মার্ট বাংলাদেশ গড়তে শিক্ষকদের ভূমিকা অপরিসীম : জাহিদ ফারুক হেলমেট ছুড়ে মারায় শান্তকে তিরস্কার করলো বিসিবি বিপদে পুলিশকে পাশে পেয়ে মানুষ যেন স্বস্তি বোধ করে তা নিশ্চিত করুন : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে আবারও প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত করার আহ্বান এনামুল হক শামীমের
  • আপডেট টাইম : 06/12/2022 09:16 PM
  • 49 বার পঠিত

আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় এবং তুলনামূলকভাবে দাম ভালো পাওয়ায় সবজি চাষে খুশির জোয়ার বইছে জেলার কৃষকদের মাঝে।
জেলার সবজি চাষিরা বলছেন, অধিক মুনাফা পেতে আগাম জাতের সবজি চাষের বিকল্প নেই। এতে সবমিলিয়ে মাত্র ৭০-৭৫ দিনেই ফসল বাজারজাত করা সম্ভব। আর বাজারে ফুলকপি, বাঁধাকপি, বেগুনসহ বিভিন্ন আগাম জাতের সবজির চাহিদা থাকায় ভাল দাম পাওয়া যাচ্ছে।
কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের জেলা কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, চলতি মৌসুমে (২০২২-২০২৩) এখন পর্যন্ত ফুলকপি, বাধাঁকপিসহ বিভিন্ন প্রকার সবজি চাষাবাদ হয়েছে প্রায় পাঁচহাজার ৭০০ হেক্টর জমিতে। তবে এখনো সবজি চাষের সময় থাকায় আগামী বছর মার্চ মাস নাগাদ প্রায় সাড়ে ছয়হাজার হেক্টর জমিতে সবজি চাষ ছাড়িয়ে যেতে পারে।
সরজমিনে কৃষকদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, পানি জমে থাকে না এমন জমি নির্বাচন করতে হয় আগাম জাতের ফুলকপি ও বাঁধাকপি চাষের জন্য। সেই ফসল মাত্র ৭০-৭৫ দিনে কৃষকদের ঘরে উঠে। সারাদেশের বাজারে এসব ফুলকপি আর বাঁধাকপির চাহিদাও প্রচুর। ফলে লালমনিরহাটের চাষিদের উৎপাদিত সবজি এলাকার চাহিদা মেটানোর পাশাপাশি ট্রাকে করে রাজধানী ঢাকাসহ সারা দেশের সবজি বাজারে বিক্রি হচ্ছে। ভালো দাম দিয়ে পাইকাররা ক্ষেতেই এসব সবজি ক্রয় করছেন বলে জানিয়েছেন কৃষকরা।
লালমনিরহাটের পাটগ্রাম উপজেলার বাউড়া এলাকার কৃষক ইমান আলী (৪০) জানান, এবছর তিনি দু’বিঘা জমিতে প্রায় নয়হাজার ফুলকপির চারা রোপন করেছিলেন। গত বছরের তুলনায় বৃষ্টি কম হওয়ায় ফলনও ভালো হয়েছে। প্রতিটি ফুলকপি প্রায় এককেজি ওজনের হয়েছে। প্রতি কেজি ফুলকপির উৎপাদন খরচ পড়েছে ৬ থেকে ৭ টাকা। বর্তমানে স্থানীয় বাজারে প্রতি কেজি ফুলকপির দাম ৩০-৩৫ টাকা হলেও তিনি পাইকারদের কাছে বিক্রি করছেন ১৭/১৮ টাকা দরে।
তবে বেগুন চাষে অপেক্ষাকৃত কম উৎপাদন খরচ হওয়ায় বেশ ভালো দাম পেয়েছেন বলে জানান তিনি। শুরুতে প্রায় ৩০ টাকা দরে বেগুন বিক্রি করলেও বর্তমানে বেগুনের পাইকারি মূল্য অনেক কম বলে জানান তিনি। এরপরেও গত তিনমাসে বেগুন বিক্রিতে যথেষ্ট লাভ করেছেন।
একই কথা বলেন ওই এলাকার কৃষক বাবুল হোসেন (৩৭)। তিনি জানান, বাঁধাকপিরও বেশ ভালো ফলন হয়েছে এবার। খুব শীঘ্রই বাঁধাকপির বিক্রি শুরু হবে। আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় মুনাফা ভালো হবে বলেও আশা প্রকাশ করেন তিনি।
আদিতমারী উপজেলার দেওডোবা এলাকার কৃষক মোশারফ হোসেন (৫০) জানান, ফুলকপি, বাঁধাকপি, বেগুনসহ বিভিন্ন ধরণের শাক-সবজি চাষাবাদ করেছেন তিনি। এরমধ্যে আগাম জাতের সবজি বিক্রি করে বেশ ভালো দাম পেয়েছেন। এখন তিনি দ্বিতীয় দফায় বেগুন চাষ করছেন।
লালমনিরহাটে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক হামিদুর রহমান জানান, বাজারের সবজির দাম ভালো পাওয়ায় কৃষকরা লাভবান হচ্ছেন। ফলে অনেকেই সবজি চাষে আগ্রহী হয়ে উঠছেন। চলতি মৌসুমে (২০২২-২০২৩) জেলার পাঁচটি উপজেলায় এখন পর্যন্ত পাঁচহাজার সাতশ’ হেক্টর জমিতে সবজি চাষ হয়েছে, যা আগামি মার্চ মাস নাগাদ সাড়ে ৬ হাজার হেক্টর ছাড়িয়ে যাবে।গত মৌসুমে জেলায় ছয়হাজার ৪০০ হেক্টর জমিতে বিভিন্ন ধরণের সবজি চাষ হয়েছে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
ফেসবুকে আমরা...